সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

লিও টলস্টয় এবং তাঁর সমাজ চেতনা/ Leo Tolstoy And His Writings On Society


লিও টলস্টয় এবং তাঁর সমাজ চেতনা/ Leo Tolstoy And His Writings On Society


সরকারের অবলুপ্তি এবং ভায়োলেন্সের অ্যান্টিডট হিসাবে রাষ্ট্রের অসারতা , এমন ভেবেছেন লিও তলস্তয়। 



লিও টলস্টয় এবং তাঁর সমাজ চেতনা/ Leo Tolstoy And His Writings On Society
লিও তলস্তয়: Image Courtesy: Getty Images 



“violence no longer rests on the belief in its utility, but only on the fact of its having existed so long, and being organized by the ruling classes who profit by it."


হিংসা র এক উপযোগিতা আছে, আর তা নির্ভর করে কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষের বিশ্বাসের উপর । আমার আপনার মতের উপর নির্ভর করে না, তবে এটি কেন এতদিন বিদ্যমান সমাজে? এর থাকার একমাত্র কারণ এর  দ্বারা লাভবান হবার সম্ভাবনা একমাত্র শাসক শ্রেণীর। শাসক শ্রেণী দ্বারা সংগঠিত হিংসা।


“to be led by a coward is to be controlled by all that the coward fears,” - কাপুরুষের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ, কাপুরুষের দ্বারা পরিচালিত, আর কাপুরুষের দ্বারা ভীতি প্রদর্শন-  অক্টাভিয়া বাটলার (o ctavia b)  লিখেছেন নেতাদের বেছে নেওয়ার বিষয়ে, তার তীব্র উপদেশ।  “to be led by a fool is to be led by the opportunists who control the fool.” - একজন বোকার নেতৃত্বে থাকা, সুবিধাবাদীদের দ্বারা পরিচালিত হওয়া, এবং  বোকাটিকে নিয়ন্ত্রণ করা - সবগুলোই অসুবিধাজনক। প্রাণীদের যেমন গভীর ভাবে কিছু অনুভব করবার ক্ষমতা আছে, তেমনি ভাবে আমরাও কিছু  কিছু গভীর অর্থ অনুভব করতে পারি, সর্বোপরি নেতৃত্বে থাকা  নিজের নৈতিকতা আর বিবেককে অন্যের হাতে তুলে দেওয়ার ঝুঁকি থেকে বাঁচাতে আমরা নিজেরাই পারি।    প্যারাডক্স (paradox) হলো আমারা, এই মানবেরা সংখ্যায় অনেক। আক্রমণাত্মক প্রজাতির আমরা, আমরা এই মানুষেরা, প্রচুর বৈপরীত্য আছে আমাদের মধ্যে, যেহেতু আমাদের মধ্যে প্রচুর প্রচুর বিভিন্ন মতবাদের মানুষের সংখ্যা অনেক বেশি, তাই শাসিত হওয়া যেন আমাদের স্ব-নির্মিত ভাগ্য - আর এটা আমরা মেনেও নিয়েছি। কিন্তু আমরা এখনও  দুর্নীতি মুক্ত, স্বয়ংসম্পূর্ণ  একটা সরকার উদ্ভাবন করতে পারি নি।


লিও টলস্টয় ( leo tolstoy ) সেপ্টেম্বর ৯, ১৮২৮ - নভেম্বর ২০, ১৯১০) শেষ লেখা - "last steps: the late writings of leo tolstoy"- লাস্ট স্টেপস: দ্য লেট রাইটিংস অফ লিও টলস্টয়-   জীবনের শেষ ধাপ জুড়ে এই প্যারাডক্সের সাথে টানাপোড়েন চলতে থাকে। তার শেষ জার্নালগুলির যে সংগ্রহ আছে, যা আমাদের বিজ্ঞান, আধ্যাত্মিকতার প্রতি তার চিন্তনের প্রতিফলন  এবং জীবনের , বেঁচে থাকার অর্থ, জীবন নিয়ে আসলে কি ভাবব তার  অনুসন্ধান দেন।


বিংশ শতাব্দীর প্রথম বছর, জীবন শেষ হয়ে আসছে,  শেষ দিনগুলিতে লিখতে গিয়ে, প্রবীণ টলস্টয় আধুনিক জীবনের অন্যতম প্রধান ভণ্ডামির কথা বলেছে


"the whole complexity of our urban life lies in the fact that people think up and accustom themselves to harmful requirements, and then use all their mental energies to satisfy them or reduce the harm caused by satisfying them… before speaking about the goodness of satisfying one’s requirements, one ought to decide what requirements constitute goodness. that’s very important.


আমাদের শহুরে জীবনের পুরো জটিলতা এক চরম সত্যের মধ্যেই নিহিত। লোকজন ক্ষতিকারক চাহিদাগুলির সাথে যেন মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে চলেছে।  নিজেকে চিন্তা করতে কোনো এক আধুনিক বিলাস বহুল জীবনর মাঝে এবং অভ্যস্ত করে ফেলে ধীরে ধীরে এবং তারপরে নিজেদের সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করে, অপরাধ বোধ ভোগে। আর তারপর নিজেদের  ক্ষতি হ্রাস করার জন্য তাদের সমস্ত মানসিক শক্তি একত্রিত করে ব্যবহার করে। জীবনে বিলাস এবং তার পর চরম অপরাধবোধ, এই চক্রাকারে যেন জীবন ঘুরতে থাকে। নিজেকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে, জীবনের পথে চলতে গেলে  প্রয়োজনীয়তাগুলি সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। এটাই খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  


(চলবে)

মন্তব্যসমূহ

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

কাকে বলে স্ট্রিম অফ কনসাসনেস বা মগ্নচৈতন্য / What is Stream of Consciousness?

কাকে বলে স্ট্রিম অফ কনসাসনেস ? সাহিত্য ধারায় এটি এক রীতি, বলতে গেলে লেখনীর এক ধরণ। সাহিত্যের আলোচনায়  কিংবা সমালোচনায় 'স্ট্রিম অফ কনসাসনেস'- ‘Stream of Consciousness’  বা মগ্নচৈতন্য শুধুমাত্র এক শব্দ নয়, এ এক অনন্য, এক স্বতন্ত্র জঁর  ।  মগ্নচৈতন্যের   স্রোত সাহিত্যসৃষ্টির এক অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ন ধারা,  যা কিনা  বিংশ শতাব্দীর কিছু বিখ্যাত লেখক   নিযুক্ত এক স্বতন্ত্র লেখন রীতি। নিজেদের লেখনীতে কিছু ঘটনা পরম্পরাকে  বর্ণনা করতে ব্যবহার করেছিলেন তারা ।  কিন্তু '  মগ্নচৈতন্য '  কী?  কেনই বা  এটি একটি 'ধারা' বা ' জঁর' ?  কিছু  পরিচিতি দিলাম বটে শুরুতে কয়েকটি শব্দকে আশ্রয় করে, তবে  বিস্তারিত আলোচনা  এগোবে আস্তে আস্তে।  এই আপাত সাধারণ এবং একইসঙ্গে ব্যাপকভাবে ভুল বোঝাবুঝির আশঙ্কা যুক্ত , সাহিত্যিক টার্মটির ধারণা  পরিষ্কার করতে সহায়তা করতে পারে হয়ত এই  আলোচনা ।   Image Courtesy: Steve Jhonson:pixels.com/free image প্রকৃতপক্ষে, ' মগ্নচৈতন্য  '   সাহিত্যের  জঁর  হিসাবে একেবারেই শুরু করেনি    তার  জীবন !  তবে ?   অবাক করা তথ্য এই  যে - সম্ভবতঃ এটি ছিল   এ

কলকাতার জলছবি / Photos Of Old Kolkata & The Stories

কিছু তথ্য আর কিছু গল্প- এই নিয়েই বোধহয় এক একটি ছবির ইতিহাস লেখা হয়। আমার এই লেখায় স্থান করে নিয়েছে ভিন্ন স্বাদের পাঁচটি ছবি যাদের সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায় খুব কম, তাই মনের মধ্যে লিখে নিতে হয় এর পিছনের ইতিহাস।  আজ আমরা দেখবো কলকাতাকে। না, পটভূমিকা  ঠিক আধুনিক কলকাতা নয়, বরং আজ আমরা একটু ফিরে দেখবো পুরোনো কলকাতাকে। কিছু ছবি, যা পেয়েছি গুগল এর সৌজন্যে; ছবিগুলো ইন্টারনেটে পাওয়া যায়, শুধু লেখাটা আমার। আমি আমার মতো করে চেষ্টা করেছি সেই পুরোনো কলকাতাকে ফিরে দেখতে। এক  একটা ছবিকে কেন্দ্র করে তৈরি করেছি নিজস্ব  কিছু গল্পের বুনোট। কলকাতার ব্যস্ততা- পুরোনো সেই ট্রাম, অপেক্ষমান লোকজন, কোথাও পৌঁছতে চাইছে , ঘরে ফেরার তাড়া-  মিলিয়ে মিশিয়ে কলকাতার একটা ব্যস্ত দিনের ছবি।রাস্তার একপাশে দাঁড়ানো ক্লান্ত গাড়িটাও একটু জিরিয়ে নিচ্ছে। জেগে উঠেছে কলকাতা। তার অবিরাম, নিরলস চলার এক টুকরো ছোঁয়াচ।  হয়তো ব্যস্ত সময় তখন, ব্যস্ত সন্ধ্যা কোনো, আবার হয়তো সারাদিন ই চলে এমন ব্যস্ততা। ব্যস্ত বাজার - খরিদারিতে ব্যস্ত কিছুজন । কিছুজন আবার মন দিয়ে করছে দরাদরি। কিছুজনের চোখ আবার রকমারি জিনিসের গুন্ পরী

বাংলা অণুগল্প- অনুগল্প সিরিজ /Bengali Story

অসীম আর মাধবীলতা অসীম.....এই যে এই দিকে, মাধবীলতা আবার ডাক দিলো,....... হ্যাঁ একদম ঠিক যাচ্ছ,......আমার হাতটা লক্ষ্য করে আস্তে আস্তে এগিয়ে এস, না না ওদিকে নয়.......ওদিকে কাঁটার ঝোপ......গায়ে ফুটে গেলে কেলেঙ্কারির একশেষ.....মাধবীলতা আর ভরসা রাখতে পারলো না, নিজেই এগিয়ে গিয়ে অসীমের হাত নিজের হাতের মধ্যে নিয়ে হাঁটতে লাগলো। অসীমের জামাকাপড় ভিজে জবজব করছে। একজায়গায় থামলো তারা, বেশ নির্জন, একটা বাড়ির ভিতরে ঢুকে এল। একটু পুরোনো বাড়ি কিন্তু বসবাসের যোগ্য। মাথাটা মুছে নাও, বেশ ভিজেছ, ঠান্ডা ব'সে গেলে জ্বর আসতে পারে....মাধবীলতা হাতের মুঠো ছেড়ে দিয়ে একটা গামছা এগিয়ে দিল। .অসীম গামছাটা নিয়ে সামনে খোলা জানালার বাইরের পুকুরটার দিকে তাকিয়ে রইল একদৃষ্টে। মাধবীলতার শাড়ির আঁচলের একটা অংশ একটু দেখা যাচ্ছে। ওদিকটায় বোধহয় কাঁটাঝোপ ছিল. কালকের মধ্যে দুটো লাশ ই ভেসে উঠবে আশা করা যায় । -------------------------------------------- ছ'য়ে ছটাক : অনুগল্প ১. জানালাটার গ্রিলের মধ্যে দিয়ে নিজের চার হাত পা বের করে দিল সে, এবার শেকল দিয়ে বাঁধার কাজ শুরু হবে। ২.আমার পেনের কালিটা ধীরে ধীরে শেষ