সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

জুলাই, ২০২০ থেকে পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

ডায়েরির পাতা থেকে - ১০ / Personnel Memoir - 10

আবার সেই জীবনে ফেরা।  ২১.০১.২০১৬ মন পবনের ঢাল, ওরে তোর আদরের নিয়তি চাল।  নিয়তি আসলে কি বা কোথায় আমাদের নিয়ে যায়, নিয়তির কোনো নির্দিষ্ট চাল অথবা কোনো নির্দিষ্ট ভাগ বা ভালোবাসার সংগ্রহ আছে কি ? নিয়তির নির্দিষ্ট চালে আমরা চলেছি সবাই,  সবারই  যাবার অবশ্য কোনো নির্দিষ্ট জায়গা নেই , চলতে হয় তাই চলা , কথা বলা, আর ভালো থাকার চেষ্টা করা।  নিয়তির নির্দিষ্ট করে দেওয়া রাস্তাটা একটা নিয়তির মতো মনে হয়। নিয়তির অমোঘ টানে আমরা চলেছি, আমাদের সবার জীবনই বয়ে চলেছে। আমি আর আমার ভালোবাসার মানুষও যেন একটা নিয়তির অমোঘ টানে চলেছে আর তার চলার অবশেষটুকু আমাদের জীবনের শেষপর্যন্ত থাকবে।  ২২.০১.২০১৬ ঝগড়ার মধ্যে একটা আলাদা আদর আদর মাধুর্য আছে।  মিষ্টি মিষ্টি কথা আছে, ছোট্ট ছোট্ট অভিমানগুলো আছে যা মনকে ভরিয়ে দিতে থাকে। ঝগড়া হয়, আবার আদরের মধ্যে দিয়ে সব মিটমাটও হয়ে যায়। চোখের মধ্যে দিয়ে, চোখের ভিতর দিয়ে অনেক কথা বলা হয়ে যায়। মনের ভিতর দিয়ে, বুকের ভিতর দিয়ে একটা প্রিয়তম অনুভূতির মধ্যে দিয়ে আস্তে আস্তে পথ চলা শুরু করতে ইচ্ছে করে। একটা অনুভূতি শুরু হয়, ইচ্ছে হয় , আরও ইচ্ছে হয় এই অনুভূতির। আজ থেকে যেন একটা নতুন

ডায়েরির পাতা থেকে - ৯ / Personnel Memoir - 9

আজকাল কোনো যান অনেক বেশি অবসন্ন লাগে।  ১৫.০১.২০১৬ পৃথিবীতে অনেক রকম ভালোবাসা আছে। কয়েক রকম ভাগে ভাগ করা যায়। ভালোবাসা আর ভালোবাসার মধ্যে না ভালোবাসা ! না ভালোবাসারও কতক রকমফের থাকে। আস্তে আস্তে তারাও বর্তমানে বিলীন হতে থাকে। ভালোবাসার মধ্যে যে অখন্ড আদর থাকে তারা নিজেদের মধ্যে খেলা করতে থাকে। নিজেদের মধ্যে খেলা করতে করতে তারা কেন জানি না নিজেদের মধ্যে আদরও ভাগাভাগি করে নেয়। আদরগুলোকে আবার ভালোবাসায় জড়িয়ে নেয়। ছোট্ট ছোট্ট ফুলের মত টুকটুকে মিষ্টি মিষ্টি চোখের চাউনিগুলো প্রশমিত হতে থাকে। প্রশমিত কিংবা অর্ধেক অর্ধেক ভালোলাগায়, আদরে বিভূধিত। কিন্তু অযথা !  ১৬.০১.২০১৬ কোথা কোথা তোমায় হারাব আর কোথা কোথা খুঁজি ফিরব ! কোথায় ,কোথায় আর কোথায় - আমাদের আর তোমাদের ছোট্ট ছোট্ট ভালোলাগা আর মন্দলাগা একটা দুর্ঘটনা ছাড়া তো কিছুই ছিল না। সত্যি একটা দুর্ঘটনা ছাড়া আর কিছু হতে পারত না। কোথায় কোথায় তামাদি অথবা অসত্য না হওয়া ঘটনাটা ঘটতে থাকবে। অসত্য অথবা অর্ধসত্য ঘটনার কোনো দস্তাবেজ থাকে না কিংবা থাকার চেষ্টাও একটা বাতুলতা মাত্র। কিন্তু চেষ্টার বাতুলতা আর হিমশীতল স্পর্শের মতো একটা আঘাত কোথা দিয়ে য

পৃথিবীর দীর্ঘতম বাস রুট - কলকাতা থেকে লন্ডন / The World’s Longest Bus Route- From London To Kolkata

কলকাতা থেকে লন্ডনে যাবেন? বাসে চেপে ? ঠিক এইরকমই এক পরিকল্পনা করা হয়েছিল একবার... লন্ডন - কলকাতা - কলকাতা - লন্ডন , বাস সার্ভিস তাও    আবার লাক্সারি    বাস সার্ভিস। চমকে  উঠলেন    নাকি ? তা চমক লাগানো কথা বটে ! খাস কলকাতা থেকে বাস নিয়ে যাবে কিনা সুদূর লন্ডন ! হ্যাঁ , সত্যি।   বাস বটে একখানা। নাম তার এলবার্ট।   খাসা ট্যুর প্ল্যান হয়েছিল। কি দুঃখ হচ্ছে ? যেতে পারবেন না তাই ?  এত দুঃখ করার কিচ্ছু    নেই , সেই বাসে    এখনও চড়তে পারেন আপনি। কি বলছেন , তাই আবার হয় নাকি ? খুব    হয়। কিন্তু একটু টাইম মেশিনে চড়ে বসতে হবে যে !  Image  Courtesy: reddit.com  ১৯৬০   সালে   কলকাতা   থেকে ইংল্যান্ডের রাজধানী লন্ডন যাওয়ার জন্য একটি বাস সার্ভিস। ডবল ডেকার সমস্ত রকমের লাক্সারি সুবিধাযুক্ত বাস। এলবার্ট ট্যুর।    বিশ্বের দীর্ঘতম বাস রুটে   কলকাতা থেকে লন্ডন যাবার জন্য ভাড়ার পরিমান ধার্য হয়েছিল ১৪