সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

তরু দত্ত: সাহিত্যের খোঁজ ও বিন্যাস / প্রথম পর্ব / Life Of Toru Dutta

আমার বিশেষ আগ্রহের বিষয়বস্তু তরু দত্ত। প্রথম ভারতীয় মহিলা সাহিত্যিক যিনি ইংরেজি এবং ফরাসি  ভাষায় সাহিত্য রচনা করেন।  তরু দত্তের সাহিত্য এবং জীবন , এই আমার লেখার বিষয়।  কয়েকটি  পর্বে  লিখব  লেখিকার  জীবনী।  


তরু দত্ত: সাহিত্যের খোঁজ ও  বিন্যাস / প্রথম পর্ব / Life  Of Toru Dutta
Image Courtesy: wikipedia.org

      এই কাহিনী শুরু হয়েছে  গত শতকের ভারতবর্ষে, যে ভারতবর্ষের পটভূমিতে  দিগ্বিজয়ের ইতিহাস গাঁথা থাকে। এমনই এক সময়ের গল্প এটি। গল্প নামের এই  সত্যি কাহিনী সেই শতকের  যে শতকে মহিলাদের জন্য ঘর-সংসারের ইচ্ছাহীন জীবন বেছে  দেওয়া হ'তো, ঠিক সেই সময়, সেই স্থির সময়ের বৈপরীত্য - চলমান সময়দাঁড়িয়ে  প্রকৃতপক্ষে ইতিহাসের এক সুবর্ন লগ্নে সাহিত্যের এক উদ্বেল সূচনা হয়েছিল। "moving-contrasts" এর ভিতরে আর এক ধরণের বৈপরীত্য কাজ করত, এই বৈপরীত্যের ভিতরে একটা গল্প সোজাসুজি চলতে থাকে, আর আর একটা গল্প চলতে থাকে  উল্টোপথে। ভারতীয় সমাজ সংস্কৃতিতে তখন শুরু হয়ে গেছে কাহিনীকে গেঁথে নেবার ছাপ।

 আমাদের বিষয়  ভারতের মহিলা সাহিত্যিকদের  মধ্যে বিদেশী           ভাষায় লেখালেখি। ইংরেজিতে লেখালেখি শুরু হয়েছিল কেবলমাত্র     উনিশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে, আর তা শুরু করবার পুরোভাগে ছিলেন     দত্ত বোনেরা। তা একমাত্র সম্ভবপর হয়েছিল তাঁদের দ্বারাই। এ         এমন  এক সময়, যখন নারীদের সাধারণত "মুক্তি" সম্ভাবনার কারণে    ইংরেজীর  ব্যবহার তথা শিক্ষা থেকেই থেকে দূরে রাখা হত,যা কিনা গোঁড়া পিতৃতান্ত্রিক কাঠামোর প্রতিষ্ঠার জন্য একদম অনুরূপ। কিংবা হুমকিস্বরূপ। যদি আটকানো যেতে পারে সূচনা, সূচনা এক নতুন অধ্যায়ের। কিন্তু না আটকানো গে'ল না, ভারতীয় নারীদের বিদেশি ভাষার লেখনীর শুভ সূচনা হল।  লেখা তার নিজস্ব গতিপথে এগোতে থাকল। ভারতীয় লেখিকাদের দ্বারা এই  ক্ষেত্রটি স্পষ্ট হয়ে উঠল, করা হ'ল আরো বেশি আকর্ষণীয়

"emancipatory" যা স্বাধীনতাকে আহ্বান করবে। সেই ছিল তরুর নিজের স্বাধীন সাহিত্য ক্ষেত্রের গড়ে ওঠার কাহিনী। ঐতিহাসিকভাবে যদিও, ভারতে মহিলারাই, তথা মহিলা কথাকারেরাই ছিলেন পুরোভাগে, পুরোপুরিভাবেই পৌরাণিক কাহিনী, কিংবদন্তি গল্পকথা, গান এবং কল্পকাহিনী মুড়ে দিয়ে গল্প বলার আর্টটিকে সমৃদ্ধতর করেছেন , মুখ্য বাহিকা হয়েছেন এনারাই , ঐতিহ্যের চিহ্ন বাহিকা, এবং বিচিত্র মৌখিক গল্প বলার কথন ঐতিহ্যকে ধারণ করে রেখেছেন এই মহিলা সাহিত্যিকেরা। উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে যখন নারীশিক্ষার আবহ সমাজে ছড়িয়ে পড়া শুরু হয়েছিল; দেখতে শুরু করবো এক রূপান্তর, নারীদের জীবনের সেই রোজকার গল্পগুলি কবিতা, নাটক এবং সাহিত্যের অন্যান্য রূপগুলিতে স্থানান্তরিত হতে শুরু করেছে। এখানে আমরা দত্ত বোনেদের-অরু এবং তরুর জীবন ও কাজের মধ্য দিয়ে ভারতের মহিলাদের দ্বারা ইংরেজিতে লেখার সূচনাটি পুনরায় দেখার চেষ্টা করি যা এক অর্থে  সাহিত্যসংগ্রামকে সত্যই চিত্রিত করে এবং প্রথম ভারতীয় ইংরেজীভাষায় মহিলা লেখকদের দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রতিষ্ঠা করে।

ভারতীয় মহিলা সাহিত্যিকেরা বেছে নিচ্ছেন তাঁদের সাহিত্য- জীবনকে, বুঝে নিচ্ছেন সময়ের সহজ হিসেব, প্রকৃতপক্ষে ইতিহাসের সব হিসেব- নিকেশ। এমন একটি সময় কাল, ইংরেজি ভাষায় লেখা হচ্ছে সাহিত্য,  সক্ষম হচ্ছে নিজের নিজের  ক্ষেত্রকে  ছাপিয়ে যাবার।  যখন সবকিছুই স্থির, তখনই শুরু হতে যাচ্ছে দোলাচল। বা বলা ভালো একক বৈপরীত্য অবস্থান।

যদিও এর আগে বহু ভারতীয় মহিলা-সাহিত্যিক  আঞ্চলিক ভাষায় কবিতা এবং গল্প- উপন্যাস রচনা করেছিলেন, তবে তা আঞ্চলিক ভাষার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। 

ভারতের মহিলা সাহিত্যিকদের মধ্যে ইংরেজিতে লেখালেখির কথা যদি অবতারণা করি তাহলে আবার ফিরে যাই ইতিহাসের সরণিতে, অন্বেষণ করি ভারতীয় মহিলা সাহিত্যিকদের ইংরেজি সাহিত্য রচনার সুচনাকে। আর এই সূচনালগ্নে এলেন অরু দত্ত এবং তরু দত্ত। এগোব আমরা তরু দত্তের জীবনকে ঘিরেই। 

অরু ও তরু - দত্ত বোনদের জীবন ও কাজের মধ্য দিয়ে ভারতীয়  মহিলা সাহিত্যিকদের  দ্বারা ইংরেজিতে লেখার সূচনাটি এখানে পুনরায় দেখার চেষ্টা করেছি - যা সত্যিকার অর্থে সাহিত্য সংগ্রামকে কল্পিত করল এবং প্রথম ভারতীয় ইংরেজী মহিলা লেখকদের কল্পনা বাস্তব রূপ নিল।

এই সেই সময়কাল যখন স্থির কিংবা চলমান ইতিহাসকে নির্ণীত করা হচ্ছিল ঠিক তার পুরোভাগে দাঁড়িয়ে epitomize করব, ছবিগুলো মিথোলজি দিয়ে জারিত করব। নারী সাহিত্যিকেরা নিচ্ছেন upholder এর ভূমিকা , সাহিত্য-সম্পদে এক retrospective শুরু হচ্ছে। অনেক বড় একটা journey, rendering শুরু করে দিলাম।

(চলবে)

মন্তব্যসমূহ

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

কাকে বলে স্ট্রিম অফ কনসাসনেস বা মগ্নচৈতন্য ? -পর্ব ১ / What is Stream of Consciousness? Part -1

কাকে বলে স্ট্রিম অফ কনসাসনেস ? সাহিত্য ধারায় এটি এক রীতি, বলতে গেলে লেখনীর এক ধরণ। সাহিত্যের আলোচনায়  কিংবা সমালোচনায় 'স্ট্রিম অফ কনসাসনেস'- ‘Stream of Consciousness’  বা মগ্নচৈতন্য শুধুমাত্র এক শব্দ নয়, এ এক অনন্য, এক স্বতন্ত্র জঁর  ।  মগ্নচৈতন্যের   স্রোত সাহিত্যসৃষ্টির এক অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ন ধারা,  যা কিনা  বিংশ শতাব্দীর কিছু বিখ্যাত লেখক   নিযুক্ত এক স্বতন্ত্র লেখন রীতি। নিজেদের লেখনীতে কিছু ঘটনা পরম্পরাকে  বর্ণনা করতে ব্যবহার করেছিলেন তারা ।  কিন্তু '  মগ্নচৈতন্য '  কী?  কেনই বা  এটি একটি 'ধারা' বা ' জঁর' ?  কিছু  পরিচিতি দিলাম বটে শুরুতে কয়েকটি শব্দকে আশ্রয় করে, তবে  বিস্তারিত আলোচনা  এগোবে আস্তে আস্তে।  এই আপাত সাধারণ এবং একইসঙ্গে ব্যাপকভাবে ভুল বোঝাবুঝির আশঙ্কা যুক্ত , সাহিত্যিক টার্মটির ধারণা  পরিষ্কার করতে সহায়তা করতে পারে হয়ত এই  আলোচনা ।   Image Courtesy: Steve Jhonson:pixels.com/free image প্রকৃতপক্ষে, ' মগ্নচৈতন্য  '   সাহিত্যের  জঁর  হিসাবে একেবারেই শুরু করেনি    তার  জীবন !  তবে ?   অবাক করা তথ্য এই  যে - সম্ভবতঃ এটি ছিল   এ

নিজের সঙ্গে একা : এমিলি ডিকিনসন / Emily Dickinson : Women Liking Their Own Company

নিজের সঙ্গে থাকতে  চাওয়া কি একান্তই অপরাধ? সব সময় কি  লোকজন সংসর্গে থাকতেই হবে ?  কোনোভাবেই থাকা যায় না কি একা ? একদম একা, নিজের সঙ্গে একা ? "… আমি আমার বাবার জমি ডিঙিয়ে  কোনও বাড়ি বা শহরে যেতে পারি না," এমিলি ডিকিনসন লিখছেন তাঁর চিঠিতে, আর এই চিঠি লেখা হয়েছে লেখক, অবলিশনিস্ট  ও সৈনিক  কর্নেল থমাস ওয়েন্টওয়ার্থ  হিগিনসনকে।  একটি চিঠির  জবাবে তাঁকে এরকমটা লিখেছিলেন এমিলি।  তাঁকে হিগিনসন তিনবার বোস্টনে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। উদ্দেশ্য, বিভিন্ন সাহিত্য বক্তৃতাগুলিতে অংশগ্রহণ করা এবং  অন্যান্য কবিদের সাথে সাহিত্যের আলোচনার জন্য সাক্ষাৎ। হিগিনসনের সঙ্গে এমিলি যোগাযোগ রাখতেন নিয়মিতই, তিনি ছিলেন বহির্জগতের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম, যার সাথে তিনি তাঁর কবিতাও ভাগ করে নিয়েছিলেন। কিন্তু তবুও তিনি তাঁর আমন্ত্রণগুলি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন, এমনকি অন্য সমসাময়িক কবিদের সাথে দেখাও করতে চাননি। এমিলি ডিকিনসন Image Courtesy : wikipedia.org  সমস্ত মহিলারা নাকি  বিপজ্জনক! আমরা  যদি  বেশিরভাগ ট্রাডিশনাল টেক্সটগুলিতে একটু চোখ বোলাই তাহলেই  একথার সত্যতা যাচাই করা হয়ে যায়। বিশেষত যদি অনুসরণ করি পুরুষদের

বাণিজ্য নগরী মুম্বাই, সুয়েজ খাল এবং দেহ -ব্যবসা / Suez Canal, transformation of Mumbai and its Sex Trade

বাণিজ্য বিস্তার হচ্ছে, নাগরিক সভ্যতা ছড়িয়ে পড়ছে বন্দর-শহর তথা ভারতবর্ষের এই দামি বাণিজ্য নগরীটিতে। এর সঙ্গে সমান্তরালে পতিতালয়গুলি তৈরী হতে শুরু করে,পূর্ব ইউরোপীয় মহিলারাই সামলাতেন তা। সুয়েজ খাল এবং বোম্বাই নগরী , কি ভাবে সম্পর্কযুক্ত ?  ১৮৬৯  সালের ২৭ নভেম্বর,  দুর্ঘটনাটি ঘটে  মিশরে সুয়েজ খাল উদ্বোধনের ঠিক দশ দিন পরে,  মালপত্র  বোঝাই হয়ে  ভারতে আসছিল যে  জাহাজটি সেটি  লোহিত সাগরে ডুবে যায়।   শোক প্রকাশ  করেছিল  বোম্বাই গার্ডিয়ান । সাথে জানিয়েছিল যে, জাহাজটি আসছিল বোর্দো  থেকে, জাহাজের নাম  নোয়েল। সংবাদপত্রে উল্লিখিত, "বার্কটি সুয়েজ খালের মধ্যে  দিয়ে আসছিল ...গন্তব্য ছিল বোম্বাই, আর সঙ্গে নিয়ে আসছিল প্রচুর ওয়াইন" ।   অবশ্য, তাতে অন্যান্য জাহাজের  যাত্রাপথে কোনো  বাধার সৃষ্টি হয়নি। হয়নি কোনো অসুবিধাও। এই সুয়েজ খালের অল্প একটু ভূমিকা দেওয়া প্রয়োজন।  সুয়েজ খাল  ভূমধ্যসাগরকে লোহিত সাগরের সাথে সংযুক্ত করেছে; সুয়েজ খালের উন্মুক্তকরণ এক  বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটিয়েছিল,  বিপ্লব ঘটিয়েছিল ইউরোপ এবং ভারতবর্ষের মধ্যেকার  বাণিজ্যিক সম্পর্কে -  কমিয়েছিল ইংল্যান্ড থেকে উপমহাদেশে ভ্র