সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

ভারতীয় সাহিত্য লেবেল থাকা পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

‘সাহিত্যের অগ্রগতি আসলে একটি জাতির আরোহণ’ - মুন্সী প্রেমচাঁদ- শেষ পর্ব‘/ The ascent of literature is the ascent of a nation’- Munsi Premchand

n মুন্সী প্রেমচাঁদ: image courtesy: wekipedia.org  এই গল্পগুলি আমাদের ধর্মের প্রাণ। এই গল্পগুলি সরিয়ে নিলে, ধর্ম হোঁচট খাবে। ধর্মের প্রবক্তারা এই কারণেই  এই গল্পগুলিতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। তারা বুঝতে পেরেছিলেন  যে তাদের বার্তা কেবলমাত্র  হৃদয়ছোঁয়া গল্পের মাধ্যমেই মানুষের প্রাণের কাছে  পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হতে পারে। এই সাধকেরা ছিলেন মহান  মানুষ, তারা তাদের নিজেদের  সত্ত্বাকে সাধারণ মানুষের জীবনের সাথে মিলিয়ে দিতে পেরেছিলেন। এই সাধকেরা সাধারণ মানুষের সাথে নিজেদের জীবনের আর মতবাদের সঙ্গতি, সাদৃশ্য এবং সামঞ্জস্য রেখেছিলেন। কীভাবেই বা  তারা মানব-চরিত্রের বিভিন্ন দিককে  উপেক্ষা করতে পারেন! প্রাচীন কাল থেকে, একজন  মানুষের নিকটতম সঙ্গী কিংবা প্রতিবেশী ছিল অন্য্ একজন মানুষই। আমরা আমাদের আত্মাকে কেবলমাত্র  তাদের সাথেই  একীভূত করতে পারি যাদের আনন্দ এবং বেদনা, হাসি এবং অশ্রু আমরা অনুভব করতে পারি। একজন শিক্ষার্থীর তার ছাত্রজীবনের সাথে যে সম্পর্ক বা একজন কৃষকের কৃষিকাজের প্রতি যে সম্বন্ধ অথবা  সখ্যতা রয়েছে তা নিশ্চয়ই অন্যের জীবনের বা কাজের জন্য তাদের মধ্যে খুঁজে পাওয়া যাবে না। সাহিত্যের অঙ্গনে প্রবেশ

‘সাহিত্যের অগ্রগতি আসলে একটি জাতির আরোহণ’ - মুন্সী প্রেমচাঁদ- প্রথম পর্ব/ ‘The ascent of literature is the ascent of a nation’- Munsi Premchand

হিন্দি সাহিত্যে  মুন্সী প্রেমচাঁদ এক অবিস্মরণীয় নাম।  সাহিত্য রূপ বিশ্লেষণে  কি ভেবেছেন তিনি ? কিভাবেই বা তিনি দেখতেন  সাহিত্যকে  ?  মুন্সী প্রেমচাঁদ: image courtesy: wekipedia.org জীবনই হ'ল সেই ভিত্তি যার উপরে সাহিত্য নির্মিত হয়, সাহিত্যের প্রতিটি রূপ স্থাপিত হয়। একটি বিল্ডিংয়ের মিনার, গম্বুজ এবং হলঘরগুলি দৃশ্যমান হয় কিন্তু এর ভিত্তিভূমি অদৃশ্য রয়ে যায়। জীবন ঈশ্বরের সৃষ্ট, এবং তা সীমাহীন এবং অনিবার্য, তা অনির্বচনীয়। সাহিত্য মানবের দ্বারা সৃষ্ট, তাই তা বোঝা এবং উপলব্ধি করা সহজ। ঈশ্বরের কাছে জীবন দায়বদ্ধ কিনা তা আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারি না, তবে সাহিত্য অবশ্যই মানুষের কাছে জবাবদিহি দাবি করে। সাহিত্যের নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে যা আমরা অগ্রাহ্য করতে পারি না। একজন মানুষ জীবনের গোলকধাঁধায় আনন্দের সন্ধানে নিজেকে নিমজ্জিত করে। কিছু মানুষ ধনরত্নের মধ্যে আনন্দ খুঁজে নেবার চেষ্টা করে, কেউ সুখী পরিবারে, কেউ বড় বড় অট্টালিকায়, কেউ বা বিলাসিতায় আনন্দ খুঁজতে থাকে অবিরাম। ভাল সাহিত্য পড়ার আনন্দ এই আনন্দগুলির চেয়ে বৃহত্তর এবং এই আনন্দগুলির অপেক্ষা অনেক বেশি শুদ্ধ, কারণ এর ভিত্তি সৌন্দর্য

একটি প্রেমের গল্প : অমৃতা প্রীতম এবং সাহির লুধিয়ানভি / The love story of Amrita Pritam and Sahir Ludhianvi

প্রেমের গল্প। প্রেম ভাঙার গল্প। পাত্র-পাত্রী সাহির লুধিয়ানভি এবং অমৃতা প্রীতম। দিকপাল দুই সাহিত্যিক। কেমন ছিল সেই সম্পর্ক ? ''আমি তো জানতাম সাহির, তোমার কোনোদিনই আমার প্রতি প্রতিশ্রুতি রক্ষার কোনো দায় ছিল না । কি যেন বলে আজকাল ! ও হ্যাঁ , কমিটমেন্ট ফোবিয়া।  ভালোবাসার প্রতিশ্রুতি রাখতে পারবে কি না সেই দ্বিধাতেই তো রয়ে গেলে। কেন  যেন মনে হয় আমার প্রতি তোমার ভালোবাসা  সেই গভীরতর  অতলান্ত  স্পর্শ করে নি কোনোদিন। ছুঁয়ে দেখেনি সেই ভালোবাসার তীব্র টানকে। আচ্ছা সত্যি করে বলো তো, তুমি কি সত্যি আমাকে ভালোবেসেছ  ? যতটা আমি তোমাকে বেসেছি।  "ম্যায়নে টুট  কে প্যায়ার কিয়া তুম সে / ক্যায়া  তুমনে ভী উতনা কিয়া মুঝ সে?'' অমৃতা প্রীতম এবং সাহির লুধিয়ানভি : Image Courtesy : Indian Express  ' ''মোহাব্বত কি পরখ  কা  ইয়েহি  তো রাস্তা  হ্যায় / তেরি  তালাশ মে নিকলু, তুঝে  না  পায়ু  ম্যায় '' । অমৃতা ভালোবাসা খুঁজেছেন, সেই আকুল করা ভালোবাসা,  হৃদয় তন্ত্রীতে সেই তীব্র ঝড় তোলা ভালোবাসা তাকেই তো খুঁজেছেন অমৃতা। পেয়েছেন কি ? খুঁজবো আমরা।  উপরের লাইনদুটি মজহা