সরাসরি প্রধান সামগ্রীতে চলে যান

পোস্টগুলি

সত্যি ঘটনা লেবেল থাকা পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে

গোল্ডেন স্টেট খুনি / হত্যাকান্ড সিরিজ- পর্ব -৪ /Golden State Killer

এক ভয়ানক খুনির কাহিনী, প্রায় চল্লিশ বছর ধরে গোয়েন্দা আর পুলিশ বিভাগকে নাকানি -চোবানি খাইয়েছিল এই হত্যাকারী। '' এত ভোরে ফোন? উফফ একটু শান্তি নেই,, '' কথা গুলো মনে মনে বলে ব্যস্ত হয়ে টেলিফোনের দিকে হাত বাড়ালো সেক্রেমেন্টো পুলিশ ফাঁড়ির ডিউটিরত অফিসারটি। ঘড়িতে তখন কাঁটায় কাঁটায় ভোর ৫ টা ।  পুলিশ ফাঁড়ির সবাই তখন একটু ঝিমাচ্ছে। সারাটা রাত  ডিউটির পর, সবারই চোখে তখন হালকা ঘুম। হ্যাঁ, যা ভাবা হয়েছে তাই, বেশ বড়সড় বিপদ। এরপরেই দ্রুত নিজের নিজের কাজে নেমে পড়ল সবাই। ভোরের আলো  তখন সবে দেখা দিতে শুরু করেছে, কয়েকজন অফিসার গাড়ি নিয়ে রওনা হল ঘটনাস্থলের দিকে।   ১৯৭৬ সালের ১৮ই জুন।  পুলিশ পৌঁছয় অকুস্থলে, উদ্ধার করা হয় এক তরুণীকে, বয়েস তেইশের কাছাকাছি, পিছনে হাত পা বাঁধা অবস্থায় পরে ছিল সে, নাম শিলা। তবে এই অবস্থাতেও অসম সাহসিকতা আর ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে  সে। মুখ দিয়ে টেলিফোনটি প্রথমে মাটিতে ফেলে দেয় এবং তারপর পুরো শরীরটাকে পিছনে ঘুরিয়ে ওই বাঁধা হাত দিয়েই পুলিশের নম্বর এ ফোন করে। দেহে আঘাতের চিহ্ন ছিল। কাছের স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়, কয়েকদিন বাদে একটু সুস্থ হয়ে ওঠার পর

হেলেন জুয়েট হত্যাকাণ্ড/হত্যাকান্ড সিরিজ - পর্ব -২/ Helen Jewett Murder Case

 ১৮৩৬ সালের ১০ এপ্রিল। অনেকক্ষন থেকেই ঠকঠক করছে  রোজিনা- রোজিনা টনসেন্ড, এই কিন্তু দরজা খোলার নাম নেই, হ'লটা  কি? মনের মধ্যে হাজার এক খানা প্রশ্ন,  একবার একটু জোরে ধাক্কা দিল রোজিনা, আরে দরজাতো খোলাই আছে! কিন্তু এই রাত  তিনটের সময় দরজা এভাবে খোলাই বা রাখা আছে কেন? আস্তে আস্তে রোজিনা ঘরে ঢুকে এলো, উফঃ এত ধোঁয়া কোথা  থেকে এলো? ঘরটা পুরো ধোঁয়ায় ভরে গেছে, চোখ মুখ জ্বলছে তার, আস্তে আস্তে চোখ রগড়ে সামনে তাকাতে চেষ্টা করলো রোজিনা। কিন্তু জুয়েট গেলো কোথায়? এত রাতে বাইরে বেরোলো নাকি? আরো একটু সামনে এগিয়ে গেলো রোজিনা, কেউ একজন পরে আছে-  একি , একি  দেখছে সে! জুয়েট পরে আছে কেন  এভাবে?  রোজিনা আঁতকে উঠল। সত্যই জুয়েট পরে আছে, মাথার কাছে চাপ চাপ রক্ত জমাট বেঁধে আছে। জুয়েট কি নেই? উনিশ শতকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ঘটে যাওয়া  এক হত্যাকাণ্ড -হেলেন জুয়েট হত্যাকান্ড। ১৮৩৬ সালে নিউ ইয়র্ক শহরে হেলেন জুয়েট নামের একজন নারী যৌনকর্মী নৃশংসভাবে খুন হয় ।  জুয়েটের মৃতদেহ তার ঘরেই তার বিছানায় পাওয়া গিয়েছিল। মাথায় ছিল ধারালো অস্ত্রের জখম এবং তিনটি জখমই ছিল বেশ গভীর।  কোনো ধ্স্তাধস্তির চিহ্ন ছিল না। খুন কর